• Home »
  • গ্রামের খবর »
  • ঢাকা থেকে পালিয়ে কাঁচেরকোলে করোনা আক্রান্ত রোগী: ১০ বাড়ি লকডাউন

ঢাকা থেকে পালিয়ে কাঁচেরকোলে করোনা আক্রান্ত রোগী: ১০ বাড়ি লকডাউন

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি গত ৭ দিন আগে ঢাকা থেকে পালিয়ে নিজ গ্রামে আসেন। এসে গ্রামের বাজারঘাট, মসজিদ ও পাড়া মহল্লায় দেদারছে ঘুরেও বেড়াচ্ছিলেন। তার নাম মুস্তাক, পিতা আলম শেখ। শৈলকুপা উপজেলার কাঁঁচেরকোল ইউনিয়নের বৃত্তিদেবী রাজনগর গ্রামে তার বাড়ি। তিনি ঢাকার বিআরবি হাসপাতালে চাকরি করতেন। সোমবার (১৮ মে) সন্ধ্যায় মুস্তাকের বাড়িসহ আশেপাশের ১০টি বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছেন শৈলকুপা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পার্থ প্রতিম শীল।

বিআরবি হাসপাতাল ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, করোনায় আক্রান্ত মুস্তাক রাজধানী ঢাকার বিআরবি হাসপাতালে চাকরি করতেন। হাসপাতালে চাকরিরত অবস্থায় করোনা উপসর্গ দেখা দিলে সে করোনা টেস্ট করায়। টেস্টে তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর সে সিদ্ধান্ত নেন গ্রামের বাড়িতে যাবেন। সিদ্ধান্ত মোতাবেক পালিয়ে গ্রামের বাড়িতে চলেও আসেন। গ্রামে এসে কুষ্টিয়া সরকারি হাসপাতালে আবারও সে করোনা টেস্ট করান। কুষ্টিয়ার টেস্টেও তার করোনা পজিটিভ আসে।

স্থানীয়রা জানান, করোনা আক্রান্ত হয়েও মুস্তাক গ্রামের মসজিদে নামাজ পড়েছেন, বাজারঘাটে গেছে এমনকি পাড়া মহল্লায় ঘুড়েও বেড়িয়েছেন বন্ধুদের সঙ্গে।

এরপর প্রতিবেশীদের সন্দেহ হলে এ নিয়ে এলাকায় কানাঘুষা শুরু হয় এবং প্রশানের কাছে খবর পৌঁছে।

এ ব্যাপারে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পার্থ প্রতিম শীল জানান, সোমবার সন্ধ্যায় আমাদের কাছে খবর পৌঁছানোর পর সঙ্গে সঙ্গে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. মোহাম্মদ আকাশ ও কচুয়া তদন্ত কেন্দ্রের একটি টিম নিয়ে কাঁঁচেরকোল ইউনিয়নের বৃত্তিদেবী রাজনগর গ্রামে যায়। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে করোনা আক্রান্ত রোগীর সঙ্গে কথা বলি এবং তাকে করোনা চিকিৎসার জন্য পরামর্শও দেয়া হয়।

পার্থ প্রতিম শীল আরও জানান, আমরা জানতে পারি করোনা আক্রান্ত মুস্তাক গত ৭ দিন আগে ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়িতে এসেছেন। মুস্তাকের বাড়িসহ আশেপাশের ১০ টি বাড়ি লকডাউন করে দেয়া হয়েছে।

এলাকায় করোনা আক্রান্ত রোগী এলে তাকে জানানোর কথাও বলেন এই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

তবে বৃত্তিদেবী রাজনগর গ্রামের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই পরিবারের অনেকেই মাঠে, বাজারে স্বাভাবিকভাবে চলাচল করেছে। যার কারণে তারা এখন করোনা আতঙ্কে রয়েছেন।

মন্তব্য করুন