স্মার্ট কার্ড নিতে করনীয়, ২২ ধরনের সেবা পাওয়া যাবে কার্ডে

আগামী ১৯ জুন বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে কাঁচেরকোল ইউনিয়নের স্মার্ট ভোটার আইডি কার্ড বিতরণ। এবারের স্মার্ট কার্ডে ব্যক্তির নাম (বাংলা ও ইংরেজি), পিতা/মাতার নাম, জন্মতারিখ ও জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন নম্বর দৃশ্যমান থাকবে। কার্ডের পেছনে থাকবে ব্যক্তির ভোটার এলাকার ঠিকানা, রক্তের গ্রুপ ও জন্মস্থান। তবে সব মিলিয়ে স্মার্ট কার্ডের মধ্যে থাকা চিপ বা তথ্যভান্ডারে ৩২ ধরনের তথ্য থাকবে, যা মেশিনে পাঠযোগ্য হবে।

১। যে সকল ভোটার গন ২০০৮ সাল হতে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ভোটার হয়েছেন তারা সবাই স্মার্ট কার্ড পাবেন।
২। কাঁচেরকোল ইউনিয়নের স্মার্ট কার্ড বিতরণের তারিখ ১৯ জুন থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত। সাজুরিয়া জেহেরা জেরীন উচ্চ বিদ্যালয়।
৩। স্মার্ট কার্ড নেবার জন্য কার্ড ধারীকে উক্ত তারিখে নির্ধারিত কেন্দ্রে উপস্থিত হতে হবে। এক জনের কার্ড আরেকজন নিতে পারবেন না।
৪। স্মার্ট কার্ড নেবার জন্য পুরনো আইডি কার্ডটি সাথে করে নিয়ে যেতে হবে। যারা এখনো আইডি কার্ড পাননি তারা নিবন্ধন স্লীপটি সাথে নিয়ে যাবেন।
৫। যাদের আইডি কার্ড হারিয়ে গিয়েছে তারা সোনালী ব্যংক অথবা রকেটের মাধ্যমে ৩৪৫ টাকা ট্রেজারি চালান কেটে জমা দিয়ে স্লীপ নিয়ে কেন্দ্রে উপস্থিত হবেন।
৬। যাদের স্লীপ হারানো গেছে চূড়ান্ত ভোটার তালিকা থেকে ভোটার নং নিয়ে যাবেন।
৭। যারা নির্ধারিত সময়ে স্মার্ট কার্ড নিতে ব্যর্থ হবেন তারা উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে নিতে পারবেন।
৮। স্মার্ট কার্ড নিতে কোনো টাকা লাগেনা।

কাঁচেরকোল ইউনিয়নের স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণের সময়সূচীঃ

১৯-০৬-২০১৯- জাঙ্গালিয়া, হামদামপুর, রতিডাঙ্গা, বালিয়াঘাট। স্থানঃ বোয়ালিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়।

২০-০৬-২০১৯- বোয়ালিয়া। স্থানঃ বোয়ালিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়।

২২-০৬-২০১৯- কাঁচেরকোল ৪নং ওয়ার্ড, কাঁচেরকোল ৫নং ওয়ার্ড, সাদেকপুর। স্থানঃ বেনীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

২৩-০৬-২০১৯- কচুয়া, মধুদহ, ধর্মপাড়া, বৃত্তিদেবী রাজনগর। স্থানঃ বেনীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

২৪-০৬-২০১৯- উত্তর মির্জাপুর, খন্দকবাড়ীয়া, ধুলিয়াপাড়া। স্থানঃ খন্দকবাড়ীয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়।

স্মার্ট কার্ডে ২২ ধরনের সেবাঃ
২২ ধরনের সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্র কাজে লাগবে। আয়করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর পাওয়া, শেয়ার আবেদন ও বিও হিসাব খোলা, ড্রাইভিং লাইসেন্স করা ও নবায়ন, ট্রেড লাইসেন্স করা, পাসপোর্ট করা ও নবায়ন, যানবাহন রেজিস্ট্রেশন, চাকরির আবেদন, বিমা স্কিমে অংশগ্রহণ, স্থাবর সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয়, বিয়ে ও তালাক রেজিস্ট্রেশন, ব্যাংক হিসাব খোলা, নির্বাচনে ভোটার শনাক্তকরণ, ব্যাংকঋণ, গ্যাস-পানি-বিদ্যুতের সংযোগ, সরকারি বিভিন্ন ভাতা উত্তোলন, টেলিফোন ও মোবাইলের সংযোগ, সরকারি ভর্তুকি, সাহায্য ও সহায়তা, ই-টিকেটিং, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি, আসামি ও অপরাধী শনাক্তকরণ, বিজনেস আইডেনটিফিকেশন নম্বর পাওয়া ও সিকিউরড ওয়েব লগে ইন করার ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর লাগবে। তবে আইনগতভাবে সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়ের নম্বর এখনো বাধ্যতামূলক করা হয়নি।

মন্তব্য করুন