• Home »
  • রাজনীতি »
  • চুলচেরা বিশ্লেষণ : শৈলকুপায় কে পাচ্ছেন ধানের শীষের টিকিট?

চুলচেরা বিশ্লেষণ : শৈলকুপায় কে পাচ্ছেন ধানের শীষের টিকিট?

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঝিনাইদহের শৈলকুপায় ৩ জনপ্রিয় মুখের মাঝে সফলতা খুঁজতে মাঠে নেমেছে একাধিক জরিপ কমিটি। চুলচেরা বিশ্লেষণ করে হারানো এ আসনটি ফিরে পেতে চায় দলটি। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিএনপির মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত শৈলকুপা বিএনপি’র প্রার্থি হিসেবে প্রাথমিক প্রত্যয়ন পেয়েছেন ৩ জন। এর মধ্যে রয়েছেন সাবেক এমপি শৈলকুপা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল ওহাব, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি ও বিএনপির মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আসাদুজ্জামান এবং ৯০ দশকের তুখোর ছাত্রনেতা খুলনা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জয়ন্ত কুমার কুন্ডু। একাদশ জাতীয় সংসদে ভোটযুদ্ধে মাঠে নামতে নবীন প্রবীনসহ বেশকিছু বিএনপি নেতা দলীয় মনোনয়নের জন্য চেষ্টা করলেও বিকল্প চিন্তা মাথায় রেখে সাবলিলভাবে তৃণমুলে এগিয়ে যাচ্ছে শৈলকুপা বিএনপি।

পৌরসভাসহ ১৪টি ইউনিয়নের ২য়-৩য় শ্রেণীর কর্মী ও সাধারণ ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, তাদের নেতাকর্মীদের মুক্তি, হারানো আসন পুন:দ্ধারসহ দীর্ঘদিন ক্ষমতাসীনদের হঠাতে নানামুখি বিকল্প পথ খুলতে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে তারা। হামলা, মামলা আর পুলিশি নির্যাতন উপেক্ষা করে সুবিধাজনক ভোটের পরিবেশে থাকতে সব ধরনের প্রস্তুুতি রয়েছে দলীয় নেতাকর্মীদের। প্রকট গ্রুপ দ্ব›দ্ব ভুলে বর্তমানে সাম্যের পথেই হাঁটছে তৃনমূল ভোটাররা। প্রার্থী নয় দলকে এগিয়ে নিতে তাদের কৌশলগত কর্মতৎপরতা অব্যাহত রেখেছে বলে প্রত্যন্তপল্লীতে কাজ করা অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা জানিয়েছে। ঐক্যফ্রন্টের জোটে থাকা সবাইকে নিয়ে প্রতিপক্ষ আওয়ামীলীগের হেবিওয়েট সাংসদ আব্দুল হাইকে পরজিত করে ধানের শীষের বিজয় সুনিশ্চিত করতে একাট্টা থাকলেও আজ অবধি শহরকেন্দ্রিক মাঠগোছাতে পারেনি শৈলকুপা বিএনপি।

এ ব্যাপারে থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসান খাঁন দিপু বলেন, বহু জেল-জুলুম আর নির্যাতনের শিকার বিএনপির নেতাকর্মীদের পিছন ফেরার সব পথ বন্ধ থাকায় হারানো আসন ফিরে পেতে কে পাচ্ছেন দলের চুড়ান্ত টিকিট তা মূখ্য নয় বরং দলগোছাতে ভোটব্যাংক বাড়াতেই তিনি ব্যস্ত সময় পার করছেন।

’৯১ সালে আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রয়াত শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ কামরুজ্জামানকে রুখে দিয়ে শৈলকুপা বিএনপির আলোচনায় আসেন থানা বিএনপির সভাপতি আব্দুল ওহাব। সেই থেকে শৈলকুপা বিএনপির অভিভাবক হিসেবে দীর্ঘদিন নানাভাবে তৃণমূলে আসন গেড়ে রয়েছেন তিনি। পরবর্তিতে প্রকট গ্রুপ দণ্ডে সাবেক পৌর মেয়র খলিলুর রহমানের হাত ধরে একের পর এক শৈলকুপায় অনেক নেতার আবির্ভাব ঘটলেও কার্যত ৩টি ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়ে দলটি। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকায় দ্বন্দ্ব-বিভেদ ভুলে সব নেতাকর্মী এককাতারে ঘুরে দাড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।

দুদকের মামলার ফাঁদে পড়া সাবেক সাংসদ আব্দুল ওহাব প্রাথমিকভাবে দলীয় টিকিট পেলেও আইনী লড়াইয়ে জিততে হবে। উপজেলার প্রতিটি অঙ্গনে তৃণমুল বিএনপির জনপ্রিয় নেতা হিসেবে তিনি পরিচিত।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি ও বিএনপির মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদ পৌর ও উপজেলা বিএনপির বেশকিছু লিডিং পোস্টের নেতাকর্মী নিয়ে মাঠে রয়েছেন বহুদিন। পুলিশি হয়রানি উপেক্ষা করে তার নিজ বাড়িতে দলীয় সভা সমাবেশ করে থাকেন নিয়মিত। স্যোসাল সামাজিকতায় তরুন এই আইনজীবির যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। ইতোমধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অনেক নেতার আস্থা অর্জন করে দলের নীতিনির্ধারনীদের মাঝে সাড়া ফেলে দিয়েছেন। নতুন মুখ হিসেবে তার কৌশলী তৎপরতায় শৈলকুপা আসনটি পুনরুদ্ধার হতে পারে বলে সচেতন মহল ধারনা করছে।

মন্তব্য করুন