• Home »
  • Uncategorized »
  • কুমারখালীর চাঁদপুরে ৫ সন্তানের জনকের লালসার শিকার ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা সেই মেয়ে!

কুমারখালীর চাঁদপুরে ৫ সন্তানের জনকের লালসার শিকার ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা সেই মেয়ে!

কুমারখালী প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার কুমারখালীর চাঁদপুর ইউনিয়নের জংগলী গ্রামের সবজি বিক্রেতা লম্পট গোলামের (৫০) লালসার শিকার হয়েছে প্রতিবেশী এক যুবতী মেয়ে। পাঁচ সন্তানের জনক লম্পট সবজি বিক্রেতা গোলাম ৫ মাস আগে পার্শ্ববর্তী ১৫ বছরের যুবতী মেয়েকে মুখ চেপে ঘরে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। মেয়েটি লজ্জায় মুখ না খোলায় তার পেট বড় হতে থাকে। এরপর সে তার মাকে বিষয়টি খুলে বলে।

লম্পট গোলাম কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের জংগলী গ্রামের মৃত রেজওয়ানের ছেলে।

রবিবার (০৬ মে) মেয়েটি তার মাকে সাথে নিয়ে কুষ্টিয়া সনো হাসপাতাল শারীরিক পরীক্ষা করে। সে সময় মেয়েটি ও তার পরিবার জানতে পারে যে তার পেটে ২২ সপ্তাহ ৪ দিনের সন্তান বেড়ে উঠছে।

এ বিষয়ে ধর্ষিতা মেয়েটি জানায়, ৫ মাস আগে সন্ধ্যায় আমি বাড়ির পাশে বাথরুমে যায়। বাথরুম থেকে বের হয়ে ঘরে ফেরার পথে লম্পট গোলাম আমার মুখ চেপে ধরে তার রুমে নিয়ে যায় এবং আমাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। আমি ভয়ে বিষয়টি কাউকে জানায়নি। আমার পেট বড় হতে থাকলে আমি আমার মায়ের সাথে এ বিষয়ে কথা বলি। তখন তারা আমাকে কুষ্টিয়া সনো হাসপাতালের ডাক্তার দেখাতে নিয়ে আসে।

মেয়েটি আরও জানায়, আমার মা-বাবা এই বাচ্চাকে নষ্ট করার জন্য ডাক্তার কে বলে। কিন্তু ডাক্তার বলে এই বাচ্চা নষ্ট করতে গেলে মেয়ের বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। পরে আমরা গ্রামে ফিরে আসলে গোলাম এই ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য বিভিন্নভাবে আমাদের চাপ প্রয়োগ করে যাচ্ছে।

মেয়েটির মা বলেন, আমার নাবালিকা মেয়েকে এত বড় ক্ষতি যে করেছে আমি তার শাস্তি দাবি জানাচ্ছি। এদিকে এসব ঘটনা ওই এলাকায় লম্পট গোলামের মেয়ের থেকেও ছোট এই মেয়েকে ধর্ষণের বিষয় ব্যাপক সমালোচনা চলছে। ধর্ষক লম্পট গোলামের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছে।

এ বিষয়ে লম্পট গোলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি সম্পুর্ণ ঘটনা এড়িয়ে গিয়ে বলেন, এখন আমি এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে পারব না।

এ ব্যাপারে এলাকাবাসী কুষ্টিয়া পুলিশ সুপারের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। তারা লম্পট গোলামকে গ্রেফতার করে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করার আহবান জানান।

মন্তব্য করুন